বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০

আয়কর রিটার্ন কী, কত টাকা থাকলে আয়কর দিতে হবে?

জীবন যাপন নভেম্বর ২৮, ২০২৩, ০৭:১৩ পিএম
আয়কর রিটার্ন কী, কত টাকা থাকলে আয়কর দিতে হবে?

প্রতিবছর আয়কর রিটার্ন জমা দেন কয়েক লাখ ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠান। সাধারণত প্রতি অর্থবছরের জুলাই থেকে নভেম্বর পর্যন্ত পাঁচ মাস জরিমানা ছাড়া বার্ষিক আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়া যায়।

আয়কর রিটার্ন হলো সরকার কর্তৃক নির্ধারিত একটি কাঠামোবদ্ধ ফরম যার মধ্যে করদাতা তার আয়-ব্যয়, সম্পদ ও দায়ের তথ্য লিখে আয়কর অফিসে দাখিল করেন। ব্যক্তি শ্রেণির করদাতা ও কোম্পানি করদাতাদের জন্য পৃথক রিটার্ন রয়েছে।

বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী যাদের ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর বা টিআইএন রয়েছে তাদের জন্য আয়কর রিটার্ন দাখিল করা বাধ্যতামূলক। তবে রিটার্ন দাখিল করলেই যে আয়কর দিতে হবে তা নয়। কারো আয় যদি করযোগ্য না হয় তাহলে কর দেওয়ার প্রয়োজন নেই, শুধু রিটার্ন জমা দিলেই হবে।

বছরে কারো আয় যদি তিন লাখ টাকার বেশি হয়, তাহলে তাকে আয়কর রিটার্ন জমা দিতে হবে। আগের অর্থবছর অর্থাৎ ২০২২ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের জুন মাস পর্যন্ত আয়-ব্যয়ের হিসাব করে বার্ষিক রিটার্ন জমা দিতে হবে।

সময়মতো যারা আয়কর জমা দেন না জরিমানা সহ পরবর্তীতে নানা সমস্যায় পড়তে পারেন। জমি রেজিস্ট্রি থেকে শুরু করে ইউটিলিটি সংযোগ, ক্রেডিট কার্ডসহ ৩৮টি পরিষেবা পেতে আয়কর রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক।

কারা আয়কর দেবেন
দুই শ্রেণির ব্যক্তিকে আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে হবে। এক. যাদের করযোগ্য আয় আছে এবং দুই. যাদের আবশ্যিকভাবে রিটার্ন দাখিল করতে হয়। আপনি এর মধ্যে হলে আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে হবে আপনাকে। প্রত্যেক শ্রেণির করদাতার রিটার্ন দাখিলের জন্য আয়কর সার্কেল নির্ধারণ করা আছে।

বছরে আয় ৩ লাখের বেশি হলেই সেই নাগরিককে কর দিতে হবে। এক্ষেত্রে তৃতীয় লিঙ্গের করদাতা, নারী এবং ৬৫ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সের করদাতার আয় বছরে ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকার বেশি, গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযােদ্ধা করদাতার আয় বছরে ৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকার বেশি এবং প্রতিবন্ধী করদাতা ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকার বেশি হতে হবে।

এছাড়াও আরও যেসব ব্যক্তিদের অবশ্যই কর দিতে হবে চলুন জেনে নেওয়া যাক-

>> যিনি ১২ ডিজিটের টিআইএন গ্রহণ করেছেন
>> করদাতার মােট আয় করমুক্ত সীমা অতিক্রম করলে
>> আয় বছরের পূর্ববর্তী তিন বছরের যে কোন বছর করদাতার কর নির্ধারণ হয়ে থাকে বা তার আয় করযােগ্য হয়ে থাকে।
>> যদি কোনো কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের শেয়ারহােল্ডার পরিচালক বা শেয়ারহােল্ডার হন। কিংবা যদি কোনো ফার্মের অংশীদার হন।
>> আপনি যদি কোনো ব্যবসায় বা পেশায় নির্বাহী বা ব্যবস্থাপনা পদে বেতনভােগী কর্মী হন।
>> করদাতা যদি সরকার অথবা সরকারের কোনো কর্তৃপক্ষ, কর্পোরেশন, সত্ত্বা বা ইউনিটের বা প্রচলিত কোনো আইন, আদেশ বা দলিলের মাধ্যমে গঠিত কোনো কর্তৃপক্ষ, কর্পোরেশন, সত্ত্বা বা ইউনিটের কর্মচারী হয়ে আয় বছরের যে কোনো সময় ১৬ হাজার টাকা বা তদূর্ধ্ব পরিমাণ মূল বেতন আহরণ করে থাকেন।
>> আপনার যদি দুই লাখ টাকার বেশি পােস্টাল সঞ্চয় হিসাব থাকে।
>> আপনি যদি মােটর গাড়ির মালিক হন।
>> সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা বা ইউনিয়ন পরিষদ হতে ট্রেড লাইসেন্স গ্রহণ করে কোনো ব্যবসা বা পেশা পরিচালনা করেন এমন ব্যক্তিকেও কর দিতে হবে।
>> আপনি যদি কোনো কোম্পানি বা কোনো গ্রুপ অব কোম্পানিজের পরিচালনা পর্ষদে থাকেন তাহলেও কর দিতে হবে আপনাকে।
>> আপনি যদি চিকিৎসক, দন্ত চিকিৎসক, আইনজীবী, চার্টার্ড একাউন্টেন্ট, কস্ট এন্ড ম্যানেজমেন্ট একাউন্টেন্ট, প্রকৌশলী, স্থপতি অথবা সার্ভেয়ার হিসেবে বা সমজাতীয় পেশাজীবী হিসেবে কোন স্বীকৃত পেশাজীবী সংস্থার নিবন্ধিত হন তাহলেও আপনাকে কর দিতে হবে।
>> আপনি যদি আয়কর পেশাজীবী হিসেবে জাতীয় রাজস্ব বাের্ডের নিবন্ধিত হন
>> যদি কোন বণিক বা শিল্প বিষয়ক চেম্বার বা ব্যবসায়িক সংঘ বা সংস্থার সদস্য হন।
>> যিনি কোনো পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশনের কোনো পদে বা সংসদ সদস্য পদে প্রার্থী হন।
>> যদি কোনো সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্বশাসিত সংস্থা বা কোনো স্থানীয় সরকারের কোনো টেন্ডারে অংশগ্রহণ করেন;
>> করদাতা যদি মটরযান, স্পেস/স্থান, বাসস্থান অথবা অন্যান্য সম্পদ সরবরাহের মাধ্যমে শেয়ারড ইকোনমিক এক্টিভিটিজে অংশগ্রহণ করেন।
>> আপনি যদি লাইসেন্সধারী অস্ত্রের মালিক হয়ে থাকেন তাহলে করদাতাদের আয়তায় থাকবেন আপনি।

সব বেসামরিক সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারী ও পেনশনভূক্ত কর্মকর্তা/কর্মচারীরা যেখানে থাকছেন সেই অঞ্চলের নির্দিষ্ট সার্কেলে রিটার্ন জমা দিতে পারবেন। পুরোনো করদাতারা তাদের বর্তমান সার্কেলে রিটার্ন জমা দিবেন। নতুন করদাতারা তাদের নাম, চাকরিস্থল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ঠিকানার ভিত্তিতে নির্ধারিত সার্কেলে ১২ সংখ্যার ই-টিআইএন উল্লেখ করে আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে পারবেন। করদাতারা প্রয়োজনে কাছাকাছি আয়কর অফিস বা কর পরামর্শ কেন্দ্র থেকে আয়র রিটার্ন দাখিল করার সার্কেল সম্পর্কে জানতে পারবেন।

প্রতি বছর দেশের বিভিন্ন স্থানে অনুষ্ঠিত আয়কর মেলায় করদাতাগণ আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে পারেন। রিটার্ন দাখিলের সময় করদাতা বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশি দূতাবাসেও রিটার্ন দাখিল করতে পারেন।

Side banner